Saturday, May 7, 2016

আমি বেঁচে থাকতে এদেশকে নিয়ে কাউকে খেলতে দেবো না প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

আমি বেঁচে থাকতে এদেশকে নিয়ে কাউকে খেলতে দেবো না
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, এদেশে কোন জঙ্গি সন্ত্রাসের স্থান নেই। এদেশের মাটি ব্যবহার করে কাউকে সন্ত্রাসী কার্যক্রম পরিচালনা করতে দেয়া হবে না। তিনি বলেন, ‘অনেকে জঙ্গি সন্ত্রাসের ধোয়া তুলে এদেশকে নিয়ে খেলার চেষ্টা করবে। কিন্তু আমি বেঁচে থাকতে এদেশকে নিয়ে কাউকে খেলতে দেবো না।’ প্রধানমন্ত্রী আজ সংসদে ১০ম সংসদের ১০ম অধিবেশনের সমাপনী ভাষণে এসব কথা বলেন। শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় থাকাকালে এদেশ জঙ্গি সন্ত্রাসীদের অভয়ারণ্য ছিল। দুর্নীতি, সন্ত্রাস, হত্যা, ক্যু, ষড়যন্ত্রই হচ্ছে বিএনপির রাজনীতির মূলমন্ত্র। খবর বাসস’র।

ঘুষ-দুর্নীতিতে বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া তার দুই পুত্র চ্যাম্পিয়ন উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, হত্যা, ক্যু, ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে ক্ষমতা দখল এবং মানুষকে শোষণ করাই ছিল বিএনপি আমলের চিত্র।
তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়া যখন প্রধানমন্ত্রী ছিল তখন তিনি কালো টাকা সাদা করেছেন। রাষ্ট্রীয় ব্যাংক থেকে তাদের পরিবার শত শত কোটি টাকা লুটপাট করেছে। বাংলাদেশ ওই সময় বিশ্বসভায় দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন ছিল। এটাই ছিল বাংলাদেশের পরিচয়। আমরা ক্ষমতায় আসার পর সেই পরিচয় থেকে বেরিয়ে এসে আজকের বাংলাদেশ হচ্ছে উন্নয়নের রোল মডেল। বিএনপি নেত্রীর দুই ছেলেই দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন। তাদের মানি লন্ডারিং সিঙ্গাপুরের আদালতে প্রমাণিত। এফবিআই-এর লোক এসে এখানে সাক্ষী দিয়ে গেছেন। বেগম খালেদা জিয়া জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের নামে টাকা এনে এতিমের টাকা লুটপাট করেছে।
শেখ হাসিনা বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের এক তার বার্তায় বিএনপি নেত্রীর বড় ছেলে সিমেন্সসহ বিভিন্ন কোম্পানি থেকে ঘুষ নিয়েছিল তার উল্লেখ করা হয়। যুক্তরাষ্ট্রের বিচার বিভাগে একটি মামলা হয়েছে। সেখানে সিমেন্স কোম্পানি থেকে যে ঘুষ নিয়েছে সেটা যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল কোর্টে প্রমাণ হয়েছে এবং বিভিন্ন কোম্পানি থেকে তার ছেলে কত ডলার ঘুষ নিয়েছে এটাও উল্লেখ রয়েছে। এই টাকা সিঙ্গাপুরের সিটি ব্যাংকে বিএনপি নেত্রীর ছেলের বন্ধুর নামে রাখা হয়েছে এবং সেখানে সে ধরা পড়েছে ব্যাংকের কার্ড ব্যবহার করতে গিয়ে। এমনকি একটি হত্যা মামলা ঘুষ নিয়েছিল তার ছেলে। এটি তাদের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী স্বীকার করেছে। এসব দুর্নীতির মাধ্যমে যাদের সম্পদ ছিল ছেড়া গেঞ্জি আর ভাঙ্গা সুটকেস তারা শত শত কোটি টাকার মালিক হয়ে যায়।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা নিজেরা মানি লন্ডারিং দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত তারা এতো টাকা ঘুষ খেয়েছে যে আমেরিকার এফবিআই’র অফিসারকে পর্যন্ত টাকা দিয়ে কিনে ফেলেছে। এফবিআই’র অফিসারকে কিনতে গিয়ে বিএনপির এক নেতা আমেরিকাতে আটক হয়েছে। সেখানে তার বিচার হয়েছে। ওই বিচার কার্যক্রমে বিএনপি নেত্রীর উপদেষ্টা শফিক রেহমান ও মাহমুদুর রহমানের সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে। তারা সজীব ওয়াজেদ জয়কে হত্যার পরিকল্পনার বিষয়টি ওঠে এসেছে।
তিনি বলেন, ‘বিএনপি নেত্রী জয় সম্পর্কে সম্প্রতি একটি মিথ্যা অভিযোগ এনেছেন। জয় এ বিষয়টি চ্যালেঞ্জ করেছে। বিএনপি নেত্রীকে আমি সেই চ্যালেঞ্জ গ্রহণের আহ্বান জানাচ্ছি।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি এবং শেখ রেহানা আমাদের সন্তানদের উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করিয়েছি। চোর-চোট্টা বানাইনি। ২১ আগস্ট আমাকে হত্যায় ব্যর্থ হয়ে এখন আমার ছেলেকে হত্যার ষড়যন্ত্র হচ্ছে।’
তিনি বলেন, রাজনীতি জনগণের কল্যাণে এবং জনগণের জন্য। দেশের মানুষের কল্যাণে ১৯৯৬-২০০১ এবং ২০০৮ সালের পর ক্ষমতায় এসে অনেক পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল। রিজার্ভ ২৯ বিলিয়নে উন্নীত হয়েছে। প্রবৃদ্ধি ৭ ভাগের উপরে অর্জিত হয়েছে। দ্রব্যমূল্য জনগণের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে রাখা হয়েছে। মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৬১-এ নেমে এসেছে। জনগণের মাথাপিছু আয় ১ হাজার ৪৪৬ মার্কিন ডলারে উন্নীত হয়েছে। ৫ কোটি মানুষ দারিদ্র্য সীমা থেকে উঠে এসে নিম্ন মধ্য আয়ে পৌঁছেছে। ৭ বছরে ৩০ লাখ ৭৫ হাজার ৭০৮ জনের বিদেশে কর্মসংস্থান হয়েছে। দেশে ব্যাপক কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে। রফতানি আয় বেড়ে ৩২ দশমিক ২ ডলারে উন্নীত হয়েছে।

তিনি বলেন, দেশের মানুষের দোরগোড়ায় স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিতে ১৬ হাজার কমিউনিটি ক্লিনিক ও ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রের মাধ্যমে ৩০ ধরনের ওষুধ বিনামূল্যে দেয়া হচ্ছে। ডাক্তার, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মী নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এতে মা ও শিশু মৃত্যু হার কমেছে। গণমুখী স্বাস্থ্য নীতি প্রণয়নের মাধ্যমে মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে শিক্ষার হার ৭১ ভাগে উন্নীত হয়েছে। মানুষের দোরগোড়ায় শিক্ষা পৌঁছে দিতে বিনামূল্যে বই বিতরণ করা হচ্ছে। প্রাথমিক থেকে উচ্চ শিক্ষা পর্যন্ত মেধাবৃত্তি ও উপবৃত্তির ব্যবস্থা করা হয়েছে। তিনি বলেন, কৃষকদের উৎপাদন খরচ কমাতে নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। ১০ টাকায় ব্যাংক একাউন্ট খোলা এবং কৃষকদের মাঝে কৃষি উপকরণ কার্ড বিতরণ করা হয়েছে। 
শেখ হাসিনা বলেন, ১০৪টি বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। বর্তমানে ১৪ হাজার ৭শ’ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের সক্ষমতা আমরা অর্জন করেছি। দেশের ৭৬ ভাগ মানুষ এখন বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় এসেছে।

Friday, March 18, 2016

আসুন মুক্তিযুদ্ধের কথা বলি-বঙ্গবন্ধুর কথা বলি।

আমরা যারা দিনের পর দিন, রাতের পর রাত দেশ দল এবং এ দেশের দুখি মানুষের সুখ দুখ ভালো মন্দ হাসি কান্না আনন্দ বেদনা মর্মে মর্মে অনুভব করি, কিছু না করতে পারলেও সমবেদনা জানাই, এটিও একটি প্রেম। প্রেম শুধু নারী পুরুষের মধ্যেই সীমিত নয়। প্রেম দেশ জাতি ও দেশের মানুষের মঙ্গলের জন্য যে
প্রেম সে প্রেমই আসল প্রেম যা' আমাদের বিধাতার কাছাকাছি পৌঁছে দেয়। যারা ১৯৫২ তে মাতৃভাষার জন্য প্রান দিয়েছিলেন, যারা ৭১ এর মুক্তিযুদ্ধের জন্য মহান স্বাধীনতার জন্য নিজের জীবন বিলিয়ে দিয়েছিলেন, যারা ১৯৭৫ এর ১৫ই আগষ্ট নিষ্ঠুর নির্মমভাবে নিহত হয়েছিলেন। তারাই দেশ প্রেমিক, তারাই সত্যিকার অর্থে প্রেমিক।
আজকের এই ২০১৬ তে এসে আমরা যারা দেশ নিয়ে ভাবি, দেশের মানুষকে নিয়ে ভাবি, আমাদের চিন্তা চেতনা ভাবনা আমাদের সেকালের নেতানেত্রীদের থেকে অনেক আলাদা। তাই আজ আমাদেরকেও দু'চার কথা বলতে হয়। কেউ শুনুক আর নাই শুনুক আমরা বলবো। আমরা গাধার মতোই চিল্লাবো। কোন নেতা নেত্রী গ্রহন করুন আর নাই করুন। আমরা কেন দেশকে ভালোবাসি? কেন রাজনীতি ও রাষ্ট্রনীতিকে নিয়ে এতো মাথা ঘামাই? কতোটাই বা এর মর্ম অনুধাবনের ক্ষমতা রয়েছে অথবা আমাদের ভূমিকা রাষ্ট্রীয় শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষায়, জনগণের নিরাপত্তায় বা জাতীয় উন্নয়নে এই চুনোপুটিদের কোন মতামত বা আদেশ/উপদেশ/লেখা/প্রবন্ধ/সংবাদ সমীক্ষা কোথাও কি কোন ক্ষেত্রে সরকারের অথবা দেশ ও দশের কোন কাজে লাগবে? কতোটাই বা আমাদের চিন্তা চেতনা বিবেক বিবেচনা বুদ্ধি প্রজ্ঞা মেধা জাতীয় ঐক্যবোধের প্রয়োজনে বিশেষ সহায়ক বটিকা হিসেবে মূল্যায়নের পথ খুজে পাবে? আমাদের কথা কেই বা শুনবে বা কেইবা পড়বে আমরা কি বলতে চাই বা কেনই বা দিনের পর দিন ব্লগ অথবা ফেইসবুকে পরে থাকি?
বাংলার আদি ইতিহাস প্রজন্মের শিশুকিশোর যুবকদের কাছে মহান মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতা ও বঙ্গবন্ধুর আত্বজীবনী তুলে ধরার মহান ব্রত নিয়ে কাজ করবো।
মুজিবীয় শুভেচ্ছান্তে, 
মোকতেল হোসেন মুক্তি, 
মুক্তিযোদ্ধা,কণ্ঠশিল্পী ও 
প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, 
মালদ্বীপ আওয়ামী লীগ 
প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, 
সময়'৭১ 
www.facebook.com/muktimusician

Thursday, March 10, 2016

BAKSAL বাকশাল সম্পর্কে জেনে নিন।

কার্যনির্বাহী ও কেন্দ্রীয় কমিটি
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধানের ১১৭-ক অনুচ্ছেদের (৩) দফায় প্রদত্ত ক্ষমতা বলে রাষ্ট্রপতি সিদ্ধান্ত লইয়াছেন যে, জাতীয় দল বাংলাদেশে কৃষক শ্রমিক আওয়ামী লীগের একটি কার্যনির্বাহী কমিটি ও একটি কেন্দ্রীয় কমিটি থাকিবে। রাষ্ট্রপতি নিম্নবর্ণিত ব্যক্তিগণকে এই কমিটিদ্বয়ের সদস্য মনোনীত করিয়াছেন।
কার্যনির্বাহী কমিটি

(১) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান—চেয়ারম্যান, (২) জনাব সৈয়দ নজরুল ইসলাম, (৩) জনাব এম মনসুর আলী, (৪) জনাব খন্দকার মোশতাক আহমদ, (৫) জনাব আবুল হাসানাত মোহাম্মদ কামরুজ্জামান, (৬) জনাব আবদুল মালেক উকিল, (৭) অধ্যাপক মোহাম্মদ ইউসুফ আলী, (৮) শ্রী মনোরঞ্জন ধর, (৯) ড. মোজাফফর আহমদ চৌধুরী, (১০) জনাব শেখ আবদুল আজিজ, (১১) জনাব মহীউদ্দিন আহমদ, (১২) জনাব গাজী গোলাম মোস্তফা, (১৩) জনাব জিল্লুর রহমান—সেক্রেটারি, (১৪) জনাব শেখ ফজলুল হক মনি—সেক্রেটারি, (১৫) জনাব আবদুর রাজ্জাক— সেক্রেটারি।

কেন্দ্রীয় কমিটি

(১) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান রাষ্ট্রপতি—চেয়ারম্যান, (২) জনাব সৈয়দ নজরুল ইসলাম, উপরাষ্ট্রপতি, (৩) জনাব এম মনসুর আলী, প্রধানমন্ত্রী—সেক্রেটারি জেনারেল, (৪) জনাব আবদুল মালেক উকিল, স্পিকার, (৫) জনাব খন্দকার মোশতাক আহমদ, বাণিজ্য ও বহির্বাণিজ্যমন্ত্রী, (৬) জনাব আবুল হাসানাত মোহাম্মদ কামরুজ্জামান, শিল্পমন্ত্রী, (৭) জনাব মুহম্মদ উল্লাহ, ভূমি রাজস্ব ও ভূমি সংস্কার মন্ত্রী, (৮) জনাব আবদুস সামাদ আজাদ কৃষিমন্ত্রী, (৯) অধ্যাপক মোহাম্মদ ইউসুফ আলী শ্রম, সমাজকল্যাণ ও ক্রীড়ামন্ত্রী, (১০) শ্রী ফণী মজুমদার, স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী, (১১) ড. কামাল হোসেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী, (১২) জনাব মোহাম্মদ সোহরাব হোসেন, গণপূর্ত ও নগর উন্নয়ন মন্ত্রী, (১৩) জনাব আব্দুল মান্নান, স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রী, (১৪) জনাব আবদুর রব সেরনিয়াবাত, বন্যা নিয়ন্ত্রণ, পানিসম্পদ বিদ্যুত্ ও বন, মত্স্য ও পশুপালন মন্ত্রী, (১৫) শ্রী মনোরঞ্জন ধর, আইন, সংসদ বিষয়াবলী ও বিচারমন্ত্রী, (১৬) জনাব আব্দুল মমিন, খাদ্য, বেসামরিক সরবরাহ এবং ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রী, (১৭) জনাব আসাদুজ্জামান খান, পাটমন্ত্রী, (১৮) জনাব এম কোরবান আলী, তথ্য বেতারমন্ত্রী, (১৯) ড. আজিজুর রহমান মল্লিক, অর্থমন্ত্রী, (২০) ড. মোজাফফর আহমদ চৌধুরী, শিক্ষামন্ত্রী, (২১) জনাব তোফায়েল আহমেদ, রাষ্ট্রপতির বিশেষ সহকারী, (২২) জনাব শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন চিফ হুইপ, (২৩) জনাব আবদুল মমিন তালুকদার, সমবায় প্রতিমন্ত্রী, (২৪) জনাব দেওয়ান ফরিদ গাজী, বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী, (২৫) অধ্যাপক নুরুল ইসলাম চৌধুরী, প্রতিরক্ষা প্রতিমন্ত্রী, (২৬) জনাব তাহের উদ্দিন ঠাকুর, তথ্য ও বেতার প্রতিমন্ত্রী, (২৭) জনাব মোসলেমউদ্দিন খান, পাট প্রতিমন্ত্রী, (২৮) জনাব মোহাম্মদ নূরুল ইসলাম মঞ্জুর, যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী, (২৯) জনাব কে এম ওবায়দুর রহমান, ডাক, তার ও টেলিফোন প্রতিমন্ত্রী, (৩০) ডা. ক্ষিতীশ চন্দ্র মণ্ডল, ত্রাণ ও পুনর্বাসন প্রতিমন্ত্রী, (৩১) জনাব রেয়াজ উদ্দিন আহমেদ, বন, মত্স্য ও পশুপালন প্রতিমন্ত্রী, (৩২) জনাব এম বায়তুল্লাহ, ডেপুটি স্পিকার, (৩৩) জনাব রুহুল কুদ্দুস, রাষ্ট্রপতির প্রধান সচিব, (৩৪) জনাব জিল্লুর রহমান এমপি, সেক্রেটারি, (৩৫) জনাব মহিউদ্দিন আহমদ এমপি, (৩৬) জনাব শেখ ফজলুল হক মণি-সেক্রেটারি, (৩৭) জনাব আব্দুর রাজ্জাক এমপি-সেক্রেটারি, (৩৯) জনাব আনোয়ার চৌধুরী, (৪০) বেগম সাজেদা চৌধুরী এমপি, (৪১) বেগম তসলিমা আবেদ এমপি, (৪২) জনাব আবদুর রহিম-দিনাজপুর, (৪৩) জনাব আব্দুল আওয়াল এমপি-রংপুর, (৪৪) জনাব লুত্ফর রহমান এমপি-রংপুর, (৪৫) জনাব এ কে মুজিবুর রহমান এমপি, বগুড়া, (৪৬) ড. মফিজ চৌধুরী এমপি, বগুড়া, (৪৭) ডা. আলাউদ্দিন এমপি, রাজশাহী, (৪৮) ডা. আসহাবুল হক এমপি, কুষ্টিয়া, (৫০) জনাব রওশন আলী এমপি, যশোহর, (৫১) জনাব শেখ আবদুল আজিজ এমপি, খুলনা, (৫২) জনাব সালাহ উদ্দিন ইউসুফ এমপি, খুলনা, (৫৩) মি. মাইকেল সুশীল অধিকারী, খুলনা, (৫৪) জনাব কাজী আবুল কাশেম এমপি, পটুয়াখালী, (৫৫) জনাব মোল্লা জালালউদ্দিন আহমদ এমপি, ফরিদপুর, (৫৬) জনাব শামসুদ্দিন মোল্লা এমপি, ফরিদপুর, (৫৭) শ্রী গৌরচন্দ্র বালা, ফরিদপুর, (৫৮) জনাব গাজী গোলাম মোস্তফা এমপি, ঢাকা নগর, (৫৯) জনাব শামসুল হক এমপি, ঢাকা, (৬০) জনাব শামসুদ্দোহা এমপি, ঢাকা, (৬১) রফিক উদ্দিন ভূঁঁইয়া এমপি, ময়মনসিংহ, (৬২) সৈয়দ আহমদ, ময়মনসিংহ, (৬৩) শামসুর রহমান খান এমপি, টাঙ্গাইল, (৬৪) নুরুল হক এমপি, নোয়াখালী, (৬৫) কাজী জহিরুল কাইউম এমপি, কুমিল্লা, (৬৬) ক্যাপ্টেন সুজাত আলী এমপি, কুমিল্লা, (৬৭) এম আর সিদ্দিকী এমপি, চট্টগ্রাম, (৬৮) এম এ ওয়াহাব এমপি, চট্টগ্রাম, (৬৯) শ্রী চিত্তরঞ্জন সুতার এমপি, (৭০) সৈয়দা রাজিয়া বানু এমপি, (৭১) আতাউর রহমান খান এমপি, (৭২) খোন্দকার মোহাম্মদ ইলিয়াস, (৭৩) শ্রী মং প্রু সাইন, মানিকছড়ির রাজা, (৭৪) অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ, (৭৫) আতাউর রহমান, (৭৬) পীর হাবিবুর রহমান, (৭৭) সৈয়দ আলতাফ হোসেন, (৭৮) মোহাম্মদ ফরহাদ, (৭৯) বেগম মতিয়া চৌধুরী, (৮০) হাজী মোহাম্মদ দানেশ, (৮১) তৌফিক ইমাম, সচিব, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, (৮২) নুরুল ইসলাম, সচিব, (৮৩) ফয়েজউদ্দিন আহমদ, সচিব, (৮৪) মাহবুবুর রহমান, সচিব, সংস্থাপন বিভাগ, (৮৫) আবদুল খালেক, উপরাষ্ট্রপতির সচিব, (৮৬) মুজিবুল হক, সচিব, প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়, (৮৭) আব্দুর রহিম, রাষ্ট্রপতির সচিব, (৮৮) মইনুল ইসলাম, সচিব, পূর্ত গৃহনির্মাণ ও শহর উন্নয়ন মন্ত্রণালয়, (৮৯) সৈয়দুজ্জামান, সচিব, পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়, (৯০) আনিসুজ্জামান, সচিব, (৯১) ড. এ সাত্তার, রাষ্ট্রপতির সচিব, (৯২) এম এ সামাদ, সচিব, যোগাযোগ মন্ত্রণালয়, (৯৩) আবু তাহের, সচিব, ভূমি প্রশাসন ও ভূমি সংস্কার মন্ত্রণালয়, (৯৪) আল হোসায়নী, সচিব, বিদ্যুত্ শক্তি মন্ত্রণালয়, (৯৫) ডা. তাজুল হোসেন, সচিব, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, (৯৬) মতিউর রহমান, চেয়ারম্যান, টিসিবি, (৯৭) মেজর জেনারেল কে এম শফিউল্লাহ, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান, (৯৮) এয়ার ভাইস মার্শাল এ কে খোন্দকার, বাংলাদেশ বিমান বাহিনী প্রধান, (৯৯) কমোডর এম এ ই খান, বাংলাদেশ নৌবাহিনী প্রধান, (১০০) মেজর জেনারেল খলিলুর রহমান, মহাপরিচালক, বিডিআর, (১০১) এ কে নাজির উদ্দিন আহমদ, গভর্নর, বাংলাদেশ ব্যাংক, (১০২) ড. আবদুল মতিন চৌধুরী, উপাচার্য, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, (১০৩) ড. মাযহারুল ইসলাম, উপাচার্য, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, (১০৪) ড. মুহম্মদ এনামুল হক, উপাচার্য, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, (১০৫) এটিএম সৈয়দ হোসেন, অতিরিক্ত সচিব, (১০৬) নুরুল ইসলাম, আইজিপি, পুলিশ, (১০৭) ড. নীলিমা ইব্রাহীম, (১০৮) ড. নুরুল ইসলাম, পরিচালক, পিজি হাসপাতাল, (১০৯) ওবায়দুল হক, সম্পাদক, বাংলাদেশ অবজারভার, (১১০) আনোয়ার হোসেন মঞ্জু, সম্পাদক, ইত্তেফাক, (১১১) মিজানুর রহমান, প্রাক্তন প্রধান সম্পাদক, বিপিআই, (১১২) আনোয়ারুল ইসলাম, যুগ্ম সচিব, রাষ্ট্রপতির সচিবালয়, (১১৩) ব্রিগেডিয়ার এ এন এম নুরুজ্জামান, পরিচালক, জাতীয় রক্ষীবাহিনী, (১১৪) কামারুজ্জামান, সভাপতি, বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি, (১১৫) ডা. মাজহার আলী কাদরী, বাংলাদেশ চিকিত্সক সমিতির সভাপতি। (দৈনিক ইত্তেফাক : ৭ জুন, ১৯৭৫)।

Tuesday, September 4, 2012

The First Prime Minister of Bangladesh: Shahid Tajuddin Ahmad



Tajuddin Ahmad: An Inspiration for Leaders of Tomorrow The best introduction of Tajuddin Ahmad is through a description of his skillful and dedicated leadership during the most crisis- ridden period in the history of Bangladesh. As the first Prime Minister of Bangladesh, he led people of Bangladesh to victory during the Bangladesh Liberation War in 1971. He initiated and organized the first ind ependent government of Bangladesh with the vision and courage to resist foreign aggression and occupation. He was a gifted organizer and administrator, characteristics which were surpassed only by his integrity, love for humanity, deep-seated patriotism, and unflinching stand for fairness and justice. A seeker of truth, he rose with purpose and commitment to the rank of statesman. Tajuddin Ahmad was assassinated along with three other national leaders in Dhaka Central Jail on November 3, 1975 by a wayward section of the Bangladesh Army. Shortly before his assassination, he planted hundreds of flowers in the prison compound. The saying “To plant a garden is to believe in tomorrow ” reflects his faith and optimism in the midst of darkness and desolation. The immortal legacy of this uniquely gifted man, whose loftiness of spirit and purity of heart puts him above the ranks of ordinary politicians, can serve as a beacon of light for generations to come. The ideals of Tajuddin Ahmad can serve as inspiration to educate tomorrow’s leaders as they pursue the path that leads to truth, liberty, justice, and peace. 

A Daughter’s Tribute of Love This website is a tribute of eternal love for a father, Tajuddin Ahmad, who was more than life itself. My search for a father began in my teen years when we lost him from this physical dimension of existence. The pain and suffering resulting from the immense personal loss has unfolded into a world where my father’s spirit is ever alive, providing hope and guidance. Through my journey into the world as an ever-curious wanderer, I began to discover the many facets of Tajuddin Ahmad. He was not only an extraordinary leader but an honorable man on the many levels of human relationships: he was a worthy son, brother, husband and father; a trusted friend and caring neighbor. He lived a simple and modest life; yet his many facets were woven into a rich and colorful tapestry for celebration by those who venture to seek beyond the ordinary into the extraordinary.

সুস্থ ও সুষ্ঠু রাজনীতি চাই।

সুস্থ ও সুষ্ঠু রাজনীতি চাই। সবাইকে ভাল পথে উদ্বুদ্ধ করতে চাই। রাজনীতি কেবল জনগণের জন্য হোক এটাই চাই, ব্যক্তিগত স্বার্থসিদ্ধির জন্য নয়। বর্তমান জাতীয় রাজনীতি সম্পর্কে সমালোচনায় না গিয়ে এটা বলতে পারি, রাজনীতি আছে বলেই আমরা আছি, দেশ আছে-জনগণ আছে। তবে সুস্থ রাজনীতির জন্য চেষ্টাটাও তো থাকতে হবে। সেই চেষ্টাটাই করতে চাই। ................সিমিন হোসেন রিমি।

About Rimi files nomination for by-polls Sun, Sep 2nd, 2012 6:40 pm BdST Gazipur, Sep 2 (bdnews24.com)—Simeen Hussain Rimi has filed nomination paper Biography Simin Rahman RIMI the eldest daughter of Tajuddin Ahmad (Founder Prime Minister of Bangladesh) ...See More About Me Biography of Tajuddin Ahmad (Founder Prime Minister of Bangladesh) (July 23, 1925 – November 3, 1975) Biography of Tajuddin Ahmad(Founder Prime Minister of Bangladesh)(July 23, 1925 – November 3, 1975) Tajuddin Ahmad was born on July 23, 1925, in the village Dardoria, in Kapasia Thana,of Gazipur district, which is 82 kilometers by road from the Capital city Dhaka, Bangladesh. The name of the village connotes “The River Gate” or “Flowing River” and may be associated with the river Shitalakhya on whose bank it stands. Tajuddin’s father was Moulavi Muhammad Yasin Khan and his mother Meherunnesa Khanam. There were ten brothers and sisters–four brothers and six sisters. Being the child of a conservative Muslim family from a middle class, his education began at the village maktab (religious school) founded by his father. Later on he was enrolled in Bhuleswar Primary School, two kilometers from the family house. When he was in class (grade) four he was enrolled in Kapasia Minor English School, a distance of five kilometers from Dardoria. His enrollment at this school was due to the encouragement of his mother. While a student at Kapasia M.E. School Tajuddin drew the attention of three senior revolutionary leaders who had dedicated their lives to liberating their country from the British rule. They were impressed by Tajuddin’s merit and planted the seed of patriotism in young Tajuddin’s heart. They recommended to his teachers that their student be sent on to a better school. Accordingly he was admitted into St. Nicholas Institution in Kalinganj. At this school, as well, he so distinguished himself that the headmaster advised that he be admitted into Muslim Boys’ School in Dhaka, and then he went on to St. Gregory’s High School. During his studies in school Tajuddin Ahmad always stood first in his class. In the ME Scholarship exam he won the first place in Dhaka District. Tajuddin Ahmad was also a Hafez (one who is intensely well-versed in the Holy Quran and knows the Holy Quran by heart). In 1942, when the World War II was going on, he received training in civil defense. In 1944, at the Matriculation exam, he won the twelfth place in the First Division, in Kolkata Board,the only existing board,in Bengal Province, during that period. In 1948 at the Intermediate (equivalent to HSC) exam he won the fourth place in the First Division,in Dhaka Board.He earned a Bachelor of Arts degree in 1954 in Economics from Dhaka university. Being a full time political and social worker he could not devote enough time to education.Even so he excelled in academics. He earned a law degree in 1964. A political prisoner,he appeared in law exam while in prison, by obtaining a special permission from the board of education. Tajuddin was all along associated with the Boy Scout movement. Since his school days Tajuddin Ahmad had been involved in progressive movements, politics and social work.He had been imprisoned numerous times for his political activities for freedom, democracy and economic justice. In the Provincial Election of 1954 he ran on the ticket of the Jukta (United) Front and defeated the General Secretary of the Muslim League by a wide margin and was elected MLA. As a student of law he attended his classes regularly but took the final examination while in jail and obtained the LL.B. degree. The famine of 1943 and its trail of deaths moved Tajuddin Ahmad deeply. After the famine he organized the people of the village into setting up a storage system called “Dharmagola” which was a novelty at the village level. In harvest season food grain would be collected from the rich and deposited in the storage so that food could be supplied to the hungry in time of disaster. He would work relentlessly for service to the needy. When Tajuddin Ahmad was an MLA, a boy named Abdul Aziz in his village was wounded from a gunshot. He brought the boy to the hospital and himself donated 10 ounces of blood with the purpose of saving the life of the victim. Later, on hearing that the boy died, he was deeply grieved. From the time of his student days Tajuddin Ahmad was connected with the kind of politics which aimed to emancipate the people of Bengal. From 1943 onward he was an activist of the progressive Muslim League. In 1944 he was elected Councilor of the then Bengal Muslim League. In 1947 India was partitioned into two States, namely India and Pakistan. The State of Pakistan was divided into two wings called East Pakistan and West Pakistan, which were separated by twelve hundred miles. After the partition of India, Tajuddin was actively associated with every movement that was organized in Pakistan to resist communalism and to support economic emancipation and the language movement. When East Pakistan Students League was formed on 4th January 1948 he was one of its founders and devotedly discharged his onerous responsibility in this regard. He was an active member of All-Party State Language Movement which aimed to establish Bengali,
the language spoken by the majority in East Pakistan as the State Language of Pakistan. When the Awami League was formed on 23 June, 1949 Tajuddin Ahmad was one of its main organizers. From 1953 to 1957 he was General Secretary of Dhaka District Awami League. In 1955 he was elected Social Welfare and Cultural Secretary of Awami League. He visited the United States as a State guest in 1958. The same year he visited the United Kingdom. Syeda Zohra Khatun (Lily) and Tajuddin were married on April 26, 1959. Tajuddin found an ideal life partner in Zohra, who later came to be known as Syeda Zohra Tajuddin . Their marriage inspired Tajuddin to continue his struggle for freedom and democracy. In 1962 he was actively involved in the movement for restoration of democracy and was imprisoned. In 1964  
Tajuddin Ahmad played a key role in the revival of Awami League. In 1964 after being elected Awami League’s Organizing Secretary he, under the leadership of Bangabandhu (the title Bangabandhu which means the Friend of Bengal was bestowed on Sheikh Mujibur Rahman by the people of Bangladesh), infused a new vigor into the party. In 1966 he attended with Bangabandhu the conference of opposition parties held in Lahore, (then) West Pakistan. At this conference Bangabandhu declared the Six Points, the charter of liberation of the Bangalees in (then) East Pakistan. Tajuddin was one of the key architects of the Six Points. By dint of his organizational skill and devotion he became a close associate of Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman. In the same year he was elected General Secretary of Awami League. While the movement for Six Points was ongoing he was arrested on May 8, 1966. He was released on February 12, 1969 in the face of mass upsurge. In the 1970 general election he was elected member of Pakistan’s National Assembly. In an attempt to deny the popular mandate and to foil by various stratagems, the Bangalees’ struggle to realize their rights, Pakistan’s military dictator President Yahya Khan suddenly declared postponement of the session of the National Assembly on 3rd March, 1971. The unprecedented Non-Cooperation Movement was launched under the leadership of Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman. In directing the organizational strategies of this movement and negotiating with the military rulers at the discussion table as a trusted associate of Bangabandhu, Tajuddin Ahmad proved his great talent and capabilities. While Bangabandhu could inspire people with hopes and dreams, it was Tajuddin who through his foresight and talent transformed those aspirations into realities. Indeed, Bangabandhu and Tajuddin were complimentary to each other. On the night of 25 March, 1971 the Pakistani forces went on a genocide and arrested Bangabandhu and took him to West Pakistan the next day. Liberation war of the Bangalees began. The East Pakistan declared Independence from Pakistan and emerged as Bangladesh on March 26, 1971. In the absence of Bangabandhu the responsibility of leadership devolved on Tahuddin Ahmad. On April 10, 1971 the government of the People’s Republic of Bangladesh was formed and Tajuddin became its Prime Minister by universal consent. This government took a formal oath of office in the presence of hundreds of local and foreign journalists and residents of the area on
April 17, 1971. The Proclamation of Independence was read and the Oath took place in the Mango Orchard of Bayddanathtala in Kushtia, Bangladesh. Tajuddin renamed this place “Mujibnagar” which means the ‘City of Mujib’ after Sheikh Mujibur Rahman. He declared Mujibnagar as the official Capital of Bangladesh. Despite crippling obstacles he organized both the political and the military front within a short time. His abilities, sacrifice, devotion and patriotism inspired all. The successful leadership during the liberation war marked the finest period of Tajuddin Ahmad’s life. During the liberation war the office of the exile Mujibnagar Government was established at No. 8 Theatre Road in Kolkata, India. In two rooms at one corner of No.8 Theatre Road Tajuddin set up his office and his residence. All through the liberation war Tajuddin Ahmad worked day and night in that temporary office of theatre road. He passed night after night in discomfort, ate whatever food was supplied by the mess, even did his own washing. He took a vow that till Bangladesh was liberated he would not lead a family life. As the Prime Minister of a nation ridden in war and its freedom fighters’ away from their families Tajuddin wanted to share their sufferings as well as set an example. It is not possible to express in words the hard work that he did during the nine months of the war. During those months there was no rest for him. It was because of his capable leadership that the nation could win its independence within a record time of 266 days. His firm resolve and commitment on the question of the country’s liberation had no parallel. He was far from an opportunist. He would never compromise the interest of the nation. It was his unbreakable spirit that helped the nation to wriggle out of the deep crisis into which it was thrown. With his idealism and firmness of resolve and unique qualities of leadership he was able to spurn all inducements and strove single-mindedly towards his goal. He was not willing to settle for anything less than full independence. No one could deflect him in the slightest degree from his firm resolve. Because of his clear pragmatic thinking and courage he could reach the cherished goal in due time. Tajuddin Ahmad possessed the rare ability to make the right decision with intelligence in a moment of crisis. He was able to create enthusiasm in the 75 million people of Bangladesh across parties and ideologies for freedom. During the liberation war the force of his inspiring leadership and overpowering oratory made the 75 million people of Bangladesh, irrespective of party and persuasion, into determined freedom fighters–an achievement that might not have been possible with any other leader. He knew no nepotism and treated every one, including his opponents and those who caused him harm, with fairness and justice. After the victory in the liberation war and till Bangabandhu’s return on 10 January 1972, Tajuddin directed the affairs of the state. He handed over the Prime Minister’s position to the Father of the Nation, Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman, on January 12,1972. After the transfer of power, he held the portfolios of Finance and Planning.He took great pains to build up a self-reliant and flourishing economy. He left a high mark as the Finance Minister of a newly independent nation. As a member of the constituion framing committee,Tajuddin was one of the key architects in framing the constitution of the newly liberated country. His pragmatic approach to problem solving and stand for truth and justice won him many friends. It also won him enemies who relentlessly conspired to put obstacles in his path. He resigned as the Minister of Finance on 26 October 1974. On August 15, 1975 Bangabandhu with his family-members were assassinated by the usurpers. Tajuddin was house arrested on the morning of that day. He was taken to the central jail on August 22. On November 3, 1975,while in custody, Tajuddin Ahmad and his three colleagues and national leaders, Syed Nazrul Islam, M Mansur Ali and Kamruzzaman were brutally assassinated in violation of all prison rules and the law of the land. Besides wife Syeda Zohra Tajuddin, eldest daughter Sharmin Ahmad (Reepi), second daughter Simeen Hussain (Rimi), youngest daughter Mahjabeen Ahmad (Mimi) and the only son Tanjim Ahmad (Sohel), Tajuddin has left countless admirers. The Founder Prime Minister and the protagonist of the Bangladesh liberation war, Tajuddin Ahmad, who had dedicated his heart and soul to serving humanity and building Bangladesh into a happy, prosperous and independent nation, left this world as a martyr. He lived his life with highest integrity, and offered his life for the people’s welfare. He never sought publicity nor media attention for himself. This selfless statesman who was endowed with brilliance, humility, courage and respect for people, irrespective of caste, creed or color was mercilessly killed by the enemies of the country’s liberation. Yet, there is no death of an ideal. Tajuddin is immortalized in the history of Bangladesh and Bengalee peoples’ Liberation through his noble works and glorious deeds. Translation from Bangla by Muhammad Nurul Quadir (Freedom Fighter and Lawyer)Revised by Sharmin Ahmad. April 14, 2008.Book sources:Tajuddin Ahmad: Itihasher Pata Theke. Edited by Simeen Hussain Rimi.Dhaka: Pratibhas,2000.Independence of Bangladesh in 266 Days:History and Documentary Evidence.Muhammad Nurul Quadir.Dhaka.Mukto Publishers,2004.

Tuesday, December 27, 2011

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার সঙ্গে বিএনপি সরকারের সম্পৃক্ততা ছিল

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার সঙ্গে তৎকালীন বিএনপি সরকারের সম্পৃক্ততারP অভিযোগ করে শেখ হাসিনা বলেন, আমি এখনো বিশ্বাস করি এটা প্রকাশ্য দিবালোকের মতো সত্য যে সরকারের মদদ ছাড়া এ ধরণের ঘটনা ঘটতে পারে না। পরিকল্পিতভাবে এই হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছিলো। তাতে কোনো সন্দেহ নেই।' রোববার সকালে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহত শহীদদের শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন। আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, 'রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে রাজনৈতিকভাবেই মোকাবেলা করতে হবে। গ্রেনেড মেরে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে শেষ করে দেবে এটা হবে না। এজন্যই ২১ অগাস্ট গ্রেনেড হামলার বিচারের রায় বাংলার মাটিতে কার্যকর করা হবে। যেভাবে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের বিচার হয়েছে, সেভাবে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার বিচারও করা হবে।' তিনি বলেন, 'আমি রাজনীতি করি এ দেশের মানুষের জন্য। তাই আল্লাহ হয়তো সেদিন আমাকে রক্ষা করেছেন, আমার হাত দিয়ে ভালো কিছু করানোর জন্য।' ১৯৮২ সালে চট্টগ্রামে আমাকে হত্যার উদ্দেশে গুলি চালানো হয়েছিল। সেদিনও ২৪ জন নেতাকর্মী নিহত হয়েছিল। তিনি বলেন, আমার বিশ্বাস, এদেশের মানুষের ভাল কিছু করতেই মহান আলাহতালা আমাকে বাঁচিয়ে রেখেছেন। এদেশের মানুষের জন্য সততা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করে যাচ্ছি। আমার পিতা এদেশের মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর জন্য সর্বোচ্চ ত্যাগ করে গেছেন। তাঁর আদর্শ আমার প্রেরণা। তিনি জনগণের কাছে তাদের কল্যাণে সবসময় কাজ করে যাওয়ার দোয়া কামনা করেন। শেখ হাসিনা বলেন, 'তখনকার সময় যারা ক্ষমতায় ছিলো তারা এ হামলার সুষ্ঠু তদন্ত করেনি। উল্টো সকল আলামত নষ্ট করে দিয়েছিলো। অবিস্ফোরিত গ্রেনেড আলামত হিসাবে সংরক্ষিত না রেখে ধ্বংস করা হয়েছিলো। তাহলে সত্য লুকানোর জন্যই কি এগুলো করা হয়েছিলো।' জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়ে তিনি আরও বলেন, 'বাংলাদেশে এই ধরনের ঘটনা আর যাতে না ঘটে- সেজন্য সরকারে আসার পর আমরা কঠোর অবস্থান নিয়েছি। যত বাধাই আসুক জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে আমরা অভিযান চালিয়ে যাবো।'
তিনি বলেন, 'সন্ত্রাস জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে আমরা সেদিন র্যা লি করছিলাম। ওই দিন আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কোনও তৎপরতা দেখিনি। অথচ এমনিতে আমরা সভা সমাবেশ করতে গেলে পুলিশ ঘিরে রাখতো। কিন্তু ওইদিন পুলিশের তৎপরতা ছিল না। এমনকি গ্রেনেড হামলার পরে আহত-নিহতদের সাহায্যের জন্যও তারা এগিয়ে আসেনি। উল্টো আমাদের দলের যারা আহত-নিহতদের সাহায্যে এগিয়ে এসেছিল তাদের ওপর পুলিশ লাঠিচার্জ ও টিয়ারগ্যাস নিক্ষেপ করে।'
পুলিশ লাঠিচার্জ ও টিয়ারগ্যাস ছুঁড়বে কেন প্রশ্ন করে তিনি বলেন, 'নিশ্চয় হামলাকারী ঘাতকদের পালিয়ে যেতে সহযোগিতা করতে পুলিশ এটা করেছিল। গ্রেনেড হামলায় আহতদেরও হাসপাতালে ঠিক মতো চিকিৎসা নিতে দেওয়া হয়নি। ঢাকা মেডিকেলে সেইদিন তেমন ডাক্তারও ছিলো না। বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে আহতদের ভর্তি করতে চায়নি।' তিনি বলেন, 'এ ঘটনার বিচার না করে তখন জর্জ মিয়াকে নিয়ে নাটক সাজানো হয়েছিলো। জর্জ মিয়ার একার পক্ষ্যে এতো গ্রেনেড বহন করা কি করে সম্ভব ছিলো।'
২১ অগাস্টের গ্রেনেড হামলার ঘটনা স্মরণ করে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী বলেন, "আমি বক্তব্য শেষে মাইক রেখে সিড়ির দিকে পা বাড়িয়েছি। তখন গোর্কি (যুগান্তরের প্রধান ফটোসাংবাদিক এস এম গোর্কি) আমাকে বললো, 'আপা একটু দাঁড়ান। আমি ছবি নিতে পারিনি।' আমি দাঁড়ালাম। তখনই হামলা শুরু হলো। আমার পাশে হানিফ ভাই (ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ হানিফ) ছিলেন। গ্রেনেডের যে স্পি¬ন্টার আমার গায়ে লাগার কথা ছিলো, তা উনার গায়ে লেগেছিলো। টপ টপ করে রক্ত আমার গায়ে পড়ছিলো।"
২১ অগাস্টের হামলায় নিহত ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য রফিকুল ইসলামের (আদা চাচা) কথা স্মরণ করে করে শেখ হাসিনা বলেন, "ঝড়-বৃষ্টি যাই থাকুক না কেন, আওয়ামী লীগের সকল সমাবেশেই আদা চাচা উপস্থিত থাকতেন।শেখ হাসিনা নিহত ও আহতদের স্মরণ করে বলেন, 'আমি বক্তব্য শেষ করে সামনের দিকে পা বাড়িয়েছি তখনই হামলাগুলো হলো। একে পর এক গ্রেনেড পড়তে থাকে। ১২/১৩টি গ্রেনেড এসে পড়ে ছিলো। আমার পাশে হানিফ ভাই (ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের প্রয়াত সভাপতি মোহাম্মদ হানিফ) ছিলেন। তিনি আমাকে আড়াল করে রাখেন। গ্রেনেডের স্প্রিন্টার আমার গায়ে না লেগে ওনার গায়ে লেগেছিলো। হানিফ ভাইয়ের সারাগায়ে রক্ত ঝড়ছিলো, সে রক্ত আমার গায়ে এসে পড়ে। 
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, সাহারা খাতুন, ওবায়দুল কাদের, মতিয়া চৌধুরী, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য তোফায়েল আহমদ ও সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) সভাপতি হাসানুল হক ইনু, ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন।

Monday, October 17, 2011

Fugitive killers must be brought back : PM Sheikh Hasina

Fugitive killers must be brought back : PM Sheikh Hasina 
Bangladesh Prime Minister Sheikh Hasina on Saturday said the six fugitive Bangabandhu killers must be brought back to the country and hanged subsequently. The prime minister called upon the grass-root level activists to strengthen their activities and work sincerely for implementing the election manifesto. "Everybody will have to be alert as conspiracies to destroy the democracy are on," 
Six killers stay out of reach
None of the remaining six convicted killers of Bangabandhu, now holed up in different countries, could be brought back yet despite Bangladesh government's diplomatic manoeuvres. 
The government even does not yet have specific information about the whereabouts of a number of the absconding killers because of their frequent change of location. It already sought assistance from the Interpol in this regard, but for no result. Law Minister Shafique Ahmed, however, yesterday claimed that the government has information about the fugitives and is working to bring them back to face justice. The six absconding killers are Lt Col (dismissed) Khandaker Abdur Rashid, Lt Col (relieved) Shariful Haque Dalim, Lt Col (retd) Nur Chowdhury, Lt Col (retd) AM Rashed Chowdhury, Capt Abdul Mazed and Risalder Moslehuddin. Five of the 12 convicted killers of Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman were executed early yesterday at Dhaka Central Jail. Another convict, Aziz Pasha, died in Zimbabwe in 2002.  Sources in the administration and intelligence agencies said the government has specific information about two of the six absconding convicts. Lt Col (retd) AM Rashed Chowdhury now resides in the USA and is trying for getting political asylum in Canada, they said. Another convict Lt Col (retd) Nur Chowdhury, after a long stay in Germany, has also sought political asylum in Canada. No specific information regarding the locations of four others is available, but different sources say they are hiding in Libya, Pakistan, Kenya and Hong Kong.

Saturday, September 3, 2011

What is Rajakar?


What is Rajakar?


Razakar (Bengali: রাজাকার) was the name given to a paramilitary force organized by the Pakistan Army during the Bangladesh Liberation Warin 1971. The word razakar, originating from Persian, literally means "volunteer". The Razakar force was composed of mostly pro-Pakistani Bengalis and Urdu-speaking migrants living in erstwhile East Pakistan (now Bangladesh). Initially, the force was under the command of local pro-Pakistani committees, but through the East Pakistan Razakar Ordinance (promulgated by General Tikka Khan on 1 June 1971) and a Ministry of Defence ordinance (promulgated 7 September 1971), Razakars were recognized as members of the Pakistan Army. Razakars were allegedly associated with many of the atrocities committed by the Pakistan Army during the 9-month war (see 1971 Bangladesh atrocities). Creation In 1971, after military cracksdown, Razakar force was created under Pakistan Army Act Sub-Section 1. Under Sub-Section 2 and 5 two other paramilitary forces Al-Badr and Al-Shams were created as well in 1971. The Pakistan government published gazette of these in Spetember,1971 from Rawalpindi's Army Headquarter. After gazette the Razakars started excuting and eliminating pro-independence Bangladeshis. Later on, Pakistani President published notification, and Razakars were receiving monthly salary and ration ( food supplies). Major General Jamsid was head of Razakar force. Al-Badr force was created in October and started operation in November. Shanti Komiti ( Peace Committee ) was created politically where Golam Azam and Khza Khairuddin was in charge of peace committee [1]These Pakistani offsprings were organized into Brigades of around 3-4000 volunteers , mainly armed with Light Infantry weapons provided by the Pakistani Army. Each Razakar Brigade was attached as an auxiliary to two Pakistani Regular Army Brigades, and their main function was to arrest and detain nationalist Bengali suspects. Usually such suspects were often tortured to death in custody. The Razakars were trained in the conventional army fashion by the Pakistan Army. Following the liberation of East Pakistan as the independent country of Bangladesh, most of the leading Razakars, allegedly includingGhulam Azam, fled to Pakistan (previously West Pakistan). Ghulam Azam maintains that he went to Pakistan to participate in the Annual General Meeting of his organization, the Jamaat-e-Islami, but he was forced to remain overseas until General Ziaur Rahman allowed him to return to Bangladesh. Many of the lower ranking Razakars who remained in Bangladesh were killed in the course of reprisals immediately after the end of fighting while as many as 36,000 were imprisoned. Of the latter many were later freed mainly because of pressure from US and China who backed Pakistan in the war, and because Pakistan was holding 200,000 Bengali speaking military and civilian personnel who were stranded in West Pakistan during the war.[2] After the restoration of democracy in 1992, an unofficial and self-proclaimed “People's Court” (Bengali: গণআদালত Gônoadalot) “sentenced” Ghulam Azam and his ten accomplices to death for war crimes and crimes against humanity. However, as the Islamist Jamaat-e-Islami party was already a part of the ruling alliance in Bangladesh, the “verdict” was ignored. Moreover, the then Bangladesh Nationalist Party (BNP) government re-granted Bangladeshi nationality to Ghulam Azam, as it had been taken from him after the war. Subdued during the rule ofAwami League from 1996-2001, Jamaat-e-Islami returned in full force after the next election in October 2001 in which a four party alliance led by BNP won a landslide victory. The new leader of Jamaat after Ghulam Azam’s retirement, Motiur Rahman Nizami, a Razakar and among the ten people tried by the Gônoadalot, became an influential minister in the government. The word রাজাকার razakar today carries the meaning "traitor" in common Bangladeshi Bengali parlance, similar to the usage of the word Quisling after the Second World War. TAREK ZIA or Tareq rahman, Father- Sector Commander, President Major Ziaur Rahman, Mother- Mrs Khaleda zia uneducated, uncapable prime minister of 20/21th century, the step wife of Mossaddek Ali Falu. Brother- Arafat Rahman koko; one of the beneficiary of Khaleda govt and nominated best addicted Young last five years in a row. Friends- Fokinnirput Gias Al Mamun, thieft of the year 2002/2006 and Bisisto Modkor, Juary, Ganzoti,Hiroinchi. chandabaaz tareikka 
বিএনপি, দলটির নেত্রী ম্যাডাম খালেদা জিয়া এবং অন্য নেত্রী-নেতাদের আইনের শাসনের বুলি হলো- বিচার মানি কিন্তু তালগাছ আমার। কথায় কথায় তারা আওয়ামী লীগকে আইনের শাসন 'অমান্যকারী' গণতন্ত্র 'হরণকারী' আরও কত কত অসুস্থ শব্দ ব্যবহার করে দলটিকে জনগণের কাছে হেয় প্রতিপন্ন করার চেষ্টা করে চলেছে গত তিন যুগেরও বেশি সময় ধরে। কিন্তু সময়ের কি প্রতিশোধ, আজ তারাই আইনের শাসন মানছে না। ম্যাডাম খালেদা জিয়ার দায়ের করা মামলায়ই হাইকোর্ট রায় দিল তাকে এক মাসের মধ্যে ক্যান্টনমেন্টের বাড়ি ছেড়ে দিতে হবে। তখনই শুরু হলো মাতম_ হায় তাল গাছ আমার, হায় তালগাছ আমার। কেন এত মাতম? বস্তুত ক্যান্টনমেন্টের বাড়িটি হাত ছাড়া হয়ে গেলে তথাকথিত বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদী দলটির বহুদলীয় গণতন্ত্র বা আইনের শাসনের ওপর থেকে যে মিলিটারি গিলাপটি সরে যাবে। নইলে সরকারের দেয়া গুলশানে প্রায় ৭০/৮০ কোটি টাকা মূল্যের একটি বাড়ি থাকতে কেন তিনি ক্যান্টনমেন্টে বাড়ি ছাড়তে চাইছেন না? অথচ এই ক্যান্টনমেন্টে বসবাসের কারণে তাঁর দলীয় নেতা-কমর্ী-সমর্থকরা তার সাথে দেখা করতে পারেন না। কাজেই এ বাড়ি ছেড়ে গুলশানের বাড়িতে গেলে নেতা-কমর্ীরা তার সাথে সহজেই দেখা করতে পারবেন। কোন বাধার সম্মুখীন হবেন না। আমি নিজেও মনে করি বেগম খালেদা জিয়া গুলশানের বাড়িতে এলে তিনি আর জনবিচ্ছিন্ন ক্যান্টনমেন্টবাসিনী থাকবেন না বরং জনগণের কাছাকাছি চলে আসবেন। সীমাহীন সম্পদের লোভ থাকলে ভিন্ন কথা। অবশ্য দুনিয়াতেও আলস্নাহ পাক-এর বিচার আছে। যাকে আমরা প্রকৃতির প্রতিশোধ মনে করি। মনে পড়ে বাংলাদেশ যখন ক্রিকেটে টেস্ট স্ট্যাটাস-এর জন্য আবেদন করেছিল তখন যে দেশটি সবচেয়ে বেশি বিরোধিতা করেছিল, বলেছিল 'বাংলাদেশ টেস্ট ক্রিকেটের অযোগ্য, আমাদের চরমভাবে অবজ্ঞা করেছিল, সেই নিউজিল্যান্ডেরই স্ট্যাম্পগুলো একে একে উড়ে গেল টাইগারদের অপ্রতিরোধ্য বোলিং-এ। দাম্ভিক নিউজিল্যান্ডিয়ানরা অবাক বিস্ময়ে তাকিয়ে দেখল শুধু। কেবল যে স্ট্যাম্পগুলো উড়ে গেল তা নয়, সিরিজ জয় এল টাইগারদের ঘরে তাও নয়, একেবারে যাকে বলে লাইফবয় সাবান দিয়ে হোয়াইট ওয়াশ করে বুঝিয়ে দিল, দাদারা আমাদেরও দিন ছিল, কেবল সময়ের অপেক্ষা এবং সেই সময়ও এমনভাবে এল যে, একেবারে চুনকাম করে পলিশ করে দিল, দাদারা ভাবতেও পারল না। এরই নাম রয়েল বেঙ্গল টাইগার, এরই নাম প্রকৃতির প্রতিশোধ। মনে পড়ে ২০০১ সালের অক্টোবর নির্বাচনের পর সরকার গঠনের শপথ গ্রহণেরও অপেক্ষা করেনি। বিএনপি-জামায়াতীরা যেই দেখল জিতে গেছে অমনি ঝাঁপিয়ে পড়ল আওয়ামী লীগ নেতাকমর্ী এবং সংখ্যালঘু সমপ্রদায়ের জনগণের ওপর। মানুষের বাড়ি বাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হানা দিয়ে লুটপাট, মারধর, হামলা-মামলা, এমনকি নারী নির্যাতনের মতো জঘন্য অপরাধ করা শুরম্ন করল। সেই বিভীষিকাময় কালো দিনগুলোর কথা মনে পড়লে আজও শিউরে উঠতে হয়। কে না জানে জাতির জনককে সপরিবারে হত্যা করেও যখন দেখল দুই কন্যা বেঁচে আছেন তখন হত্যাকারীরা স্বসত্মি পেল না। ৬ বছর পর দেশে ফিরে এলে শেখ হাসিনাকে হত্যা করার জন্য বার বার আঘাত হেনেছে। গুলি, বোমা, এমনকি ধানম-ি ৫ নং সড়কের বাসভবনে পর্যনত্ম গুলি ছুড়েছে। তাই ১৯৯৬-২০০১-এর আওয়ামী লীগ সরকার শেখ হাসিনার জীবনের নিরাপত্তা জন্য গণভবনটি বসবাসের জন্য দেন। একই সঙ্গে শেখ রেহনাকেও ধানম-িতে একটি বাড়ি বরাদ্দ দেন। ২০০১-এর নির্বাচনে জেতার পর বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানার জন্য বরাদ্দকৃত বাসবভন দু'টির বরাদ্দ বাতিল করে দেয়। শেখ রেহানা তো তখনও বাড়িতে ওঠেনইনি। শেখ হাসিনাও সঙ্গে সঙ্গে গণভবন ছেড়ে স্বামীর বাড়ি ধানম-ি ৫ নং সড়কে চলে যান। সেদিন আমরা যারা দূর থেকে শেখ হাসিনার গণভবন ছেড়ে যাওয়ার দৃশ্য দেখেছি অনেকের মুখেই কোন কথা ছিল না, চোখে ছিল জল। এভাবে অপমান সহ্য করে শেখ হাসিনাকেও গণভবন ছাড়তে হয়েছিল। কেউ কেউ বলছেন শেখ হাসিনা প্রতিশোধ নিচ্ছেন! না, শেখ হাসিনা নিচ্ছেন না, এ প্রকৃতির প্রতিশোধ। একজন নারী যিনি একজন মুক্তিযোদ্ধার বা রাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের স্ত্রী। সেই সুবাদে তাঁকে নগদ ১০ লাখ টাকা, জ্বালানি, চালকসহ গাড়ি, দুই ছেলের লেখাপড়ার খরচ বাবদ মাসে মাসে টাকা, অর্থাৎ সব কিছু ফ্রি করে দেয়ার পরও প্রথমে থাকার জন্য ক্যান্টনমেন্টের বাড়িটি দেয়া হয় সম্ভবত ১০১ টাকার বিনিময়ে। পরে ক্যান্টনমেন্টে বাড়ি ছেড়ে দেয়ার শর্তে গুলশানে এক অথবা দেড় বিঘার ওপর নির্মিত বাড়ি দেয়া হয়। এই বাড়ি বেগম জিয়ার কাছে হসত্মানত্মরের আগে রীতিমতো খোলনলচে পাল্টে সুসজ্জিত করে তবেই হসত্মানত্মর করা হয়। খাট, পালং থেকে শুরম্ন করে চা-এর চামচ পর্যনত্ম সবকিছু দিয়ে তারপর হসত্মানত্মর করা হয় এবং এতে যে পরিমাণ টাকা খরচ হয় তা দিয়ে একটি বাড়ি বানানো যেত। কিন্তু বেগম জিয়া এবার দু'টি বাড়িই দখলে নেন। একটা কথা বলা দরকার_ শুনেছি ক্যান্টনমেন্টের বাড়িটি না কি এক শত ৬৫ কাঠা অর্থাৎ সোয়া ৮ বিঘা। এদিক থেকে গুলশানের বাড়িটির বর্তমান বাজার দর ৭০/৮০ কোটি টাকা এবং ক্যান্টনমেন্টের বাড়িটির দাম ৩০০-৪০০ কোটি টাকাও হতে পারে। বেগম জিয়ার দুটি বাড়ি দখলের ব্যাপারে পুরনো বহুল কথিত একটি গল্পের কথা মনে পড়ে গেল। সেকালে অর্থাৎ গত শতাব্দীর শেষার্ধ পর্যনত্ম বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে কিছু মানুষকে দেখা যেত যারা বড় কাছারিঅলা বাড়ি দেখলে (সন্ধ্যার আগে আগে) ঢুকে পড়ত এবং মুসাফির পরিচয় দিয়ে রাত্রিযাপনের ইচ্ছে প্রকাশ করত। এরা সাধারণত নোয়াখালী অঞ্চল থেকে বেশি আসত। একবার এক গেরসত্মবাড়িতে এসে একজন মুসাফির থাকার অনুমতি পেল। রাতের খাবারের সময় বাড়ির কর্তা এসে জানতে চাইলেন, আপনি পরোটা-মাংস খাবেন, না ভাত-মাছ_ কোন্টা। মুসাফির একটু ভেবে বললেন, দুইটাই, আগে পরোটা-মাংস খাব পরে ভাত-মাছ। বেগম জিয়ার জন্মও শুনেছি ঐ অঞ্চলেই এবং সেই সুবাদে তিনি গল্পটা নিশ্চয়ই শুনেছিলেন। প্রশ্ন হলো জিয়া মুক্তিযোদ্ধা (সেক্টর কমান্ডার) ছিলেন বা রাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ছিলেন সে জন্য তাঁর বিধবা স্ত্রীকে ও এতিম সনত্মানদের থাকার জন্য বাড়ি দেয়া হলো। তাদের ভাষায় জিয়া না কি স্বাধীনতার ঘোষক ছিলেন, আমরা বলি এটি অর্ধসত্য, পুরো সত্য হলো জিয়া বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণা চট্টগ্রাম বেতার কেন্দ্র থেকে পাঠ করেছিলেন। অর্থাৎ তিনি অন্যতম ঘোষণা পাঠক। সে যা হোক এসব অবদানের জন্য তাঁর বিধবা স্ত্রী ও সনত্মানদের এত কিছু দেয়া হলো। আমরা কি প্রশ্ন করতে পারি শেখ মুজিব ছিলেন বাঙালী জাতির হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ সনত্মান। বাঙালী জাতির অবিসংবাদিত নেতা, আমাদের সুদীর্ঘ স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মহান মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক নেতা, পথপ্রদর্শক, বাঙালীর জাতি রাষ্ট্রের স্রষ্টা, স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা, জাতির জনক ও বঙ্গবন্ধু, তাঁকে হত্যার পর পরিবারের একমাত্র জীবিত এতিম দুই কন্যার জন্য কি করা হয়েছিল? বঙ্গবন্ধুর বাড়ি দু'টিই (ধানম-ি ও টুঙ্গিপাড়া) দু'বোন জনগণের উদ্দেশ্যে দান করেছেন। তাঁরা দু' বোন বিদেশে ছিলেন বলে বেঁচে গেছেন। বরং জিয়া তাদের দেশে আসতে দেয়নি। বারে বারে শেখ হাসিনাকে হত্যা করারও ষড়যন্ত্র হয়। বঙ্গবন্ধু তো রাষ্ট্রের প্রধানমন্ত্রী ও প্রেসিডেন্টও ছিলেন। সে বিষয়টিও তো বিবেচনায় আনা হয়নি। খন্দকার দেলোয়ার কিংবা মীর্জা ফখরম্নল কি বললেন না বললেন সে সব তত গুরম্নত্বপূর্ণ নয়, কিন্তু স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরম্নল ইসলাম খান (সিপিবির সভাপতি মনজুরম্নল আহসান খানের ভাই) যখন বলেন, ক্যান্টনমেন্টের বাড়িটির সাথে আবেগ জড়িত আছে। এ আবেগের অর্থ আমরা বুঝতে পারলাম না। নজরম্নল ইসলাম খান যদি একটু ব্যাখা করে বলেন তাহলে ভাল হয়। যদি বলা হয় খালেদা জিয়াকে মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী হিসেবে বাড়ি দু'টি দেয়া হয়েছে। এখানেও প্রশ্ন, বঙ্গবন্ধুর দুই পুত্র শেখ কামাল ও শেখ জামাল দু'জনই মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। শেখ কামাল মুক্তিযুদ্ধের মধ্যে বাংলাদেশ আর্মির কমিশন রেঙ্ক-এ যোগ দেন এবং প্রশিক্ষণ নিয়ে মুক্তিযুদ্ধের প্রধান সেনাপতি (তখন) কর্নেল এমএজি ওসমানীর এডিসি ছিলেন এবং মুক্তিযুদ্ধ শেষে বাংলাদেশ আর্মির ক্যাপ্টেন হিসেবে অবসর নিয়ে অসমাপ্ত শিক্ষা (ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাজ বিজ্ঞানে বি.এ. অনার্স ও এম.এ. কোর্স) সমাপ্ত করেন এবং শিল্প-সংস্কৃতি-ক্রীড়া ও রাজনীতির অঙ্গনে নিজেকে সম্পৃক্ত করেন। আর শেখ জামালও একইভাবে বাংলাদেশ আর্মির কমিশনও প্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা এবং স্বাধীনতার পর ইংল্যান্ডের বিখ্যাত সেন্ডহাস্ট থেকে প্রশিক্ষণ ও কমিশন নিয়ে আর্মিতে ফিরে যান। তাঁকেও হত্যা করা হয়েছিল সস্ত্রীক। এখানে কি আবেগের জায়গা নেই। তাদের দু'বোন তো জীবিত ছিলেন। ধরে নিলাম ক্যাপ্টেন শেখ কামাল ও লেফ্টেন্যান্ট শেখ জামালের বিয়ে হয়েছিল এক মাস হয় এবং এরই মধ্যে তাঁদেরও হত্যা করা হয়। তবে কর্নেল তাহের, জেনারেল খালেদ মোশাররফ, জেনারেল মনজুর, কর্নেল হুদা, কর্নেল হায়দারদের হত্যার পর তাদের স্ত্রী সনত্মানরা বেঁচে আছেন। তাদের ব্যাপারে কি আবেগ কাজ করে না প্রিয় নজরম্নল ইসলাম খান ভাই? তবে হঁ্যা এবার কিন্তু ভাল ধরা খেয়েছে বিএনপি। আওয়ামী লীগ যদি হাইকোর্টের মামলাটি করত বা আওয়ামী লীগ সরকার নির্বাহী আদেশে বাড়ি ছাড়তে বলতেন তাহলে বিএনপি কিছুটা হলেও রাজনৈতিক ফায়দা পেত। কিন্তু এক্ষেত্রে সে সুযোগও নেই। বেগম জিয়াই হাইকোর্টে মামলাটি করেছেন বাড়ি রক্ষার জন্য। হাইকোর্ট তার মামলাটি খারিজ করে দিয়েছে এবং তাঁকে এক মাসের মধ্যে বাড়ি ছাড়তে নির্দেশ দিয়েছেন। এখানে বেগম জিয়াকে হয় হাইকোর্টের রায়ের বিরম্নদ্ধে আপীল করতে হবে আপীল বিভাগে নয়ত হাইকোর্ট তথা বিচার বিভাগের বিরম্নদ্ধে রাজপথে নামতে হবে। কিন্তু রাজপথে নামা যে সম্ভব নয় এটা বুঝতে পেরে বেগম খালেদা জিয়ার আইনজ্ঞ ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ ডুব মেরেছেন। তাঁর কোন কথা শোনা যাচ্ছে না। না-কি আকীদা বদলানোর চেষ্টায় আছেন কে জানে? মওদুদ আহমেদের কথাইবা বলব কেন, টিএইচ খানও তেমন কোন মনত্মব্য করছেন না, সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরী ওরফে সাকা চৌধুরীও কৌশল অবলম্বন করে আর্মির ওপর ছেড়ে দিয়েছেন। তবে মাঠে নেমেছেন খালেদা জিয়ার নব্য আইন উপদেষ্টা সুপ্রীমকোর্ট বার সভাপতি এ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন। তিনিও খানিক পাশ কাটিয়ে বলেছেন আদালতের বাইরে বিষয়টি মীমাংসা হতে পারে। তার বক্তব্যে আন্দোলনের ব্যাপার নেই, আছে সালিশীর ব্যাপার। আমার বোঝাটা যদি ঠিক হয় তবে তার কথার অর্থ হলো সরকারী-বিরোধী দল বসে বিষয়টি সুরাহা করতে পারে। অর্থাৎ গ্রাম্য সালিশ। যা টাউটরা পরিচালনা করে এবং কখনও কখনও পয়সার বিনিময়ে ফতোয়া দেয়, কখনও দু'পক্ষের কাছ থেকে টাকা খেয়ে বছরের পর বছর গ্রাম্য কাজিয়া জিইয়ে রাখে। খন্দকার মাহবুব সাহেব কি তাই চান? সালিশ হলে বছরের পর বছর জিইয়ে রাখার একটা সুযোগ আসবে এবং বারের সভাপতি হিসেবে তিনি ভূমিকা রাখতে পারবেন, হয়ত তিনি তাই ভাবছেন। গ্রাম্য সালিশের মতো দু'পক্ষের কাছ থেকে টাকা খাবেন, এ কথা আমি বলছি না। খন্দকার মাহবুব সাহেব আরও যে কথা বলেছেন তা হলো 'আওয়ামী লীগ বা আওয়ামী লীগ সরকার আদালতের ঘাড়ে বন্দুক রেখে রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিল করতে চায়। তার এ বক্তব্য আদালত অবমাননা কি-না সে আইনজীবী হিসেবে তিনিই বলতে পারেন। আমরা সাধারণ মানুষ হিসেবে বুঝি কোন দল বা সরকার যখন আদালতকে প্রভাবিত করতে পারে বা আদালতকে দিয়ে নিজেদের রাজনৈতিক ফায়দা হাসিল করতে পারে, তখন সে আদালত কি আদালত থাকে? আমরা জানি আদালত কেবল আইন বা রাষ্ট্রের সংবিধান অনুযায়ী চলে, কারও কাছে দায়বদ্ধ নয়, কারও ইচ্ছা-অনিচ্ছায়ও আদালত চলে না। তারপরও খন্দকার মাহবুবের মতো একজন প্রবীণ আইনজীবী কিভাবে এমন বালখিল্য কথা বলেন বুঝি না। খন্দকার মাহবুব হোসেন আরও বলেছেন, "খালেদা জিয়ার ক্যান্টনমেন্টের বাড়ির বিষয়টি অত্যনত্ম স্পর্শকাতর। এটি জিয়াউর রহমানের স্মৃতিবিজড়িত বাড়ি।" তাহলে বাংলাদেশের সব বাড়িই তো কারও না কারও স্মৃতিবিজড়িত। তাহলে কি তাদের সবার মৃতু্যর পর তাদের বিধবা স্ত্রী বা এতিম সনত্মানদের নামে সে সব বাড়ি লিখে দিতে হবে? তাহলে তো সরকারী কাজকর্মের জন্য আর কোন বাড়িই অবশিষ্ট থাকবে না। বরং আমি মনে করি বঙ্গবন্ধু হত্যার ব্যাপারে সম্পৃক্ততা, হত্যাকারীদের দায়-মুক্তি দান ও বিদেশী দূতাবাসে বড় বড় চাকরি দিয়ে পুরস্কৃত করা, দেশে সামরিক শাসন স্থায়ী করা, গোপন বিচারে কর্নেল তাহেরের হত্যা, যুদ্ধাপরাধী গোলাম আযমকে বাংলাদেশে থাকতে দেয়া, জামায়াতের মতো ঘৃণ্য-জঘন্য যুদ্ধাপরাধী দলকে রাজনীতি করার অধিকার দান এবং সর্বোপরি স্বাধীনতাবিরোধী শক্তিকে রাজনৈতিকভাবে পুনর্বাসন করা এবং লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত বাংলাদেশকে মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার চেতনা ও মূল্যবোধের ধারা থেকে পাকি সামপ্রদায়িক ধারায় নিয়ে যাওয়া, এসব রাষ্ট্রদ্রোহী অপরাধের জন্য জিয়ার মরণোত্তর বিচার হওয়া উচিত। দেশের আজকের যে দুর্ভোগ, আশানুরূপ অগ্রগতি সাধনে ব্যর্থতা এবং সবার ওপরে একটি দেশপ্রেমিক প্রশাসন গড়ে তুলতে না পারা_ এসব কিছুর জন্য দায়ী ঐ জিয়াউর রহমান। এই ভদ্রলোকই গড়হবু রং হড় ঢ়ৎড়নষবস বলে দেশের সমাজ, রাজনীতি, প্রশাসন সর্বক্ষেত্রে ঘুষ-দুনর্ীতিকে উৎসাহিত করেছেন। এই ভদ্রলোকই মেধাবী ছাত্রছাত্রীদের হাতে অর্থ, অস্ত্র, পানীয় তুলে দিয়ে (হিজবুল বাহার) ছাত্র রাজনীতিতে সুস্থ ধারার চর্চা করার পথ রম্নদ্ধ করে দিয়ে গেছেন। বস্তুত সামরিক শাসকরা এমনই হয়। আইয়ুব-ইয়াহিয়া বা জিয়া-এরশাদকে দেখেছি। কারও সাথে কারও কোন গরমিল দেখেছি বলে মনে পড়ে না। আমি মনে করি বঙ্গবন্ধু হত্যার পর পাকিপন্থী, স্বাধীনতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধী রাজাকার-আলবদর-আলশামস বা ভাসানী ন্যাপের যে অংশটি স্বাধীনতা অর্জনে ভূমিকা রাখতে না পারার কারণে না ঘরকা না ঘাটকা ছিল, জিয়াকে ঘিরে তারা যে এক অশুভ রাজনৈতিক বলয় সৃষ্টি করার সুযোগ পেল এবং পরবতর্ীতে জিয়া হত্যার পর আরও যারা জিয়ার সেই মিলিটারি ইমেজের চাদর জড়িয়ে খালেদা জিয়াকে ঘিরে সেই বলয় রক্ষা করছে, জিয়ার মরণোত্তর বিচার হলে তাদের সেই অশুভ বলয়ও ভেঙ্গে খান খান হয়ে যাবে। বাংলাদেশ তার মূল ধারায় অগ্রসর হতে থাকবে। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা এ পথেই পরিবর্তনের সূচনা করেছেন, এগিয়ে চলেছেন। একজন মানুষের কত সম্পদ চাই, কত জমি চাই? তাঁকে তো গুলশানে একটা বাড়ি দেয়া হয়েছে। সেটিও ছোট নয়। তার দুই ছেলে তারেক রহমান ও আরাফাত রহমান তো শত শত কোটি টাকার মালিক হয়েছে। মানুষের মুখে মুখে চলছে এসব মহাজনী বাণী। কারও কারও মতে হাজার কোটি টাকাও হতে পারে। স্ত্রী-সনত্মানসহ দুই ভাইয়ের লন্ডন ব্যাঙ্ককে দুই বছরেরও বেশি সময় ধরে অবস্থান অথবা চিকিৎসার জন্য থাকার ব্যাপারটা চিনত্মা করলেই তো অনুমান করা যায়। বস্তুত একটি জনগোষ্ঠী যখন মূলধারা থেকে বিচু্যত হয় তখন তার আর মূল্যবোধ বলে কিছু থাকে না। আমরা কেবল খাই খাই চাই চাই-এর বাইরে কিছু ভাবি না। মহর্ষি টলসত্ময়ের সেই বিখ্যাত ঐড় িসঁপয ষধহফ ফড়বং ধ সধহ ৎবয়ঁরৎব গল্পটির কথা মনে পড়ে গেল। এক লোক কেবল জমি চাচ্ছে। তখন তাকে একটি ঘোড়ার পিঠে চড়িয়ে বলা হলো, এ ঘোড়া সূর্যাসত্ম পর্যনত্ম যতখানি ভূমি অতিক্রম করতে পারবে সবটাই তোমার। কথা মতো লোকটির ঘোড়া দৌড়োতে লাগল, দৌড়োতে দৌড়োতে সূর্যাসত্মের মুহূর্তে লোকটি ঘোড়া থেকে পড়ে গেল এবং মারা গেল। এবং তখন তার প্রয়োজন পড়ল মাত্র সাড়ে তিন হাত জমিন। ঢাকা-২১ অক্টোবর, ২০১০ money launderer two brother লেখক_ ফ্রি-ল্যান্স সাংবাদিক এক সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী আলাপ প্রসঙ্গে বলেছিলেন, ‘যুদ্ধাপরাধের বিচার আমরাও চাই। কিন্তু বিচারের নামে রাজনৈতিকভাবে কাউকে হয়রানি করা যাবে না।’ ১৯ মে পল্টন ময়দানে আয়োজিত সমাবেশে দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছিলেন, ‘বিএনপি যুদ্ধাপরাধের বিচারের বিরোধী নয়। তবে সেই বিচারের নামে কাউকে রাজনৈতিকভাবে হয়রানি করা হলে তাঁরা মেনে নেবেন না।’ খুবই ন্যায়সংগত ও যুক্তিপূর্ণ কথা। ন্যায়বিচারের স্বার্থেই সব বিচার-প্রক্রিয়া স্বচ্ছ হওয়া প্রয়োজন। বিশেষ করে যুদ্ধাপরাধের মতো স্পর্শকাতর একটি বিচার-প্রক্রিয়ায় কোনো গলদ বা ফাঁকফোকর থাকা উচিত নয়। এর আগে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম যখন যুদ্ধাপরাধের বিচারে বিএনপির সহযোগিতা চাইলেন, তখন দলের মহাসচিব খোন্দকার দেলোয়ার হোসেন বললেন, একদিকে সহযোগিতা চাইবেন, অন্যদিকে দলীয় নেতা-কর্মীদের ওপর নির্যাতন চালাবেন, এ স্ববিরোধী নীতি চলতে পারে না। কেবল তিন শীর্ষস্থানীয় নেতা নন, চিহ্নিত কয়েকজন বাদে গত ১৯ মাসে বিএনপির প্রায় সব স্তরের নেতা-নেত্রীর বক্তৃতা-বিবৃতি ঘাঁটলে দেখা যাবে, সরকারের উদ্দেশ্য নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করলেও কেউ যুদ্ধাপরাধের বিচারের বিপক্ষে অবস্থান নেননি।কিন্তু ৫ অক্টোবর জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশে খালেদা জিয়া তাঁর বক্তৃতায় সরাসরি যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষ নিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘স্বাধীনতার পরপরই প্রকৃত যুদ্ধাপরাধীদের ছেড়ে দেওয়া হয়। স্বাধীনতাবিরোধীদেরও তখনকার সরকার ক্ষমা করে দিয়েছিল। আজ প্রায় চার দশক পর স্বাধীনতাবিরোধীদের সহযোগীদের বিচারের কথা বলে জাতিকে হানাহানির দিকে ঠেলে দেওয়ার অপচেষ্টা চলছে। সরকারের দুমুখো নীতির বিরুদ্ধে দেশপ্রেমিক জনগণকে রুখে দাঁড়াতে হবে (প্রথম আলো, ৬ অক্টোবর ২০১০)।’আমরা ধন্দে পড়ে যাই। এ কার কণ্ঠ শুনছি—মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান প্রতিষ্ঠিত বিএনপি-প্রধানের কণ্ঠ, না স্বাধীনতাবিরোধী ও মৌলবাদী কোনো দলনেত্রীর?বক্তব্যটি হঠাৎ মুখ ফসকে বেরিয়ে গেছে, তা ভাবার কারণ নেই। যুদ্ধাপরাধের বিচার নিয়ে এ পর্যন্ত যা যা ঘটেছে, সংক্ষেপে তার বিবরণও দিয়েছেন তিনি। তবে তাঁর কথায়, জাতীয়তাবাদী চেতনার প্রতিধ্বনি ছিল না, ছিল জামায়াতের সুর। খালেদা জিয়ার প্রথম কথা হলো, আওয়ামী লীগ ‘প্রকৃত যুদ্ধাপরাধীদের’ বিচার করেনি। স্বাধীনতাবিরোধীদের সহযোগীদের বিচারের নামে এখন তারা জাতিকে হানাহানির দিকে ঠেলে দিতে চাইছে। গুটিকয়েক যুদ্ধাপরাধীর বিচার করলে দেশে হানাহানি দেখা দেবে না। বরং তাদের বিচার না হওয়ায় জাতিকে কলঙ্কের বোঝা বইতে হচ্ছে।তাঁর দ্বিতীয় কথা হলো, এই বিচার রুখে দিতে হবে।কী মারাত্মক কথা! বিচার সুষ্ঠু, স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ হওয়ার কথা নয়। বিচার রুখে দিতে হবে!বিএনপি নিজেকে মধ্যপন্থী, উদার গণতান্ত্রিক ও সাচ্চা জাতীয়তাবাদী দল বলে দাবি করে। দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বও নাকি বিএনপি ছাড়া অন্য কারও হাতে নিরাপদ নয়। স্বাধীনতার সঙ্গে জাতীয় চেতনা, মুক্তিযুদ্ধ, জনমানুষের আকাঙ্ক্ষার বিষয়টি নিশ্চয়ই ওতপ্রোতভাবে জড়িত। বিএনপি নেত্রী কোথায় পেলেন, যুদ্ধাপরাধের বিচার করলে জাতি বিভক্ত হবে? হানাহানি সৃষ্টি হবে? কোন দেশে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করায় জাতি বিভক্ত হয়েছে? গণহত্যা ও বর্বরতার দায়ে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে পরাজিত নাৎসি বাহিনীর বিচার হয়েছে। বসনিয়া ও কাম্পুচিয়ার যুদ্ধাপরাধীদেরও বিচার চলছে। তাতে সেসব দেশ বিভক্ত বা দুর্বল হয়নি। গ্লানি ও পাপমুক্ত হয়েছে।খালেদা জিয়া ‘প্রায় চার দশক পর যুদ্ধাপরাধীদের বিচার’ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। প্রশ্নটি যৌক্তিক, কিন্তু উদ্দেশ্য সৎ নয়। আমরাও মনে করি, মানবতা ও সভ্যতার বিরুদ্ধে অপরাধ সংঘটনকারীদের বিচার অনেক আগেই হওয়া উচিত ছিল। এত দিনেও তাদের বিচার করতে না পারা আমাদের সম্মিলিত ব্যর্থতা। যুক্তির খাতিরে ধরে নিলাম, স্বাধীনতার পর আওয়ামী লীগ সরকার তাদের বিচার না করে ভুল করেছে। কিন্তু বিএনপি ক্ষমতায় এসে সেই ভুল সংশোধন করল না কেন? স্বাধীন বাংলাদেশে বিএনপিই তো সবচেয়ে বেশি সময় ক্ষমতায় ছিল। নিশ্চয়ই আবারও তারা ক্ষমতায় আসার স্বপ্ন দেখে।আমরা অতীত নিয়ে বেশি ঘাঁটাঘাঁটি করতে চাই না। আইন ও ন্যায়বিচারের কথা বলতে চাই। বিএনপি নেত্রীকে জিজ্ঞেস করতে চাই, স্বাধীনতার চার দশক পর যুদ্ধাপরাধের বিচারের উদ্যোগ নিতে আইনগত বাধা আছে কি? নেই। তাহলে বিএনপির গা জ্বালা করার কারণটা কী? তাদের দলে কতজন যুদ্ধাপরাধী আছে? মাত্র একজনের (সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী) অপরাধ তদন্ত করায় খালেদা জিয়া এভাবে খেপে গেলেন কেন? না এর পেছনে আরও কারণ আছে? ৮ অক্টোবরের কাগজে ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলায় সাবেক শিল্পসচিব ও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা শোয়েব আহমদ আদালতে দেওয়া জবানবন্দিতে বলেছেন, ‘তৎকালীন শিল্পমন্ত্রী ও জামায়াত নেতা মতিউর রহমান নিজামী তাঁকে বলেছিলেন, এ বিষয়ে দেশের সর্বোচ্চ কর্তৃপক্ষ অবগত আছে। সরকার সব ব্যবস্থা নিচ্ছে।’ (প্রথম আলো, ৮ অক্টোবর, ২০১০)।যুদ্ধাপরাধের বিচারে খালেদা জিয়া বা বিএনপির অবস্থান পরিবর্তনের সঙ্গে ১০ ট্রাক অস্ত্রের কোনো সম্পর্ক আছে কি না, সেটিও ভেবে দেখার বিষয়। সে দিন মতিউর রহমান নিজামী শিল্পসচিবকে সর্বোচ্চ কর্তৃপক্ষের কথা বলে অভয় দিয়েছিলেন। তার বিনিময়ে আজ কি খালেদা জিয়া নিজামী সাহেবদের এই বলে অভয় দিচ্ছেন যে ‘আমরা আছি তোমার পাশে’?খালেদা জিয়া প্রকৃত যুদ্ধাপরাধীদের বিচার না করে সহযোগীদের বিচার নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন। যুদ্ধাপরাধীদের মধ্যে ‘প্রকৃত’ ও ‘অপ্রকৃত’ বলে কিছু নেই। যারা একাত্তরে হত্যা, ধর্ষণ, অগ্নিসংযোগের মতো ঘৃণ্য কাজে লিপ্ত ছিল, তারাই যুদ্ধাপরাধী। খালেদা জিয়া ‘প্রকৃত যুদ্ধাপরাধী’ বলতে নিশ্চয়ই দখলদার পাকিস্তানি সেনাদের বুঝিয়েছেন। আমরা তাদের বিচার করতে পারিনি, সেটি আমাদের ব্যর্থতা। তাই বলে দেশীয় যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করা যাবে না কেন? খালেদা জিয়া যুদ্ধাপরাধীদের ‘স্বাধীনতাবিরোধীদের সহযোগী’ বলে তাদের অপরাধ লাঘব করতে চাইছেন। সরকার এখন ‘স্বাধীনতাবিরোধীর’ বিচার করছে না, তাদের জন্য বিশেষ আদালতও গঠন করা হয়নি। বিচার হচ্ছে একাত্তরে হত্যা, ধর্ষণ, লুটতরাজ ও অগ্নিসংযোগের মতো অপরাধে যারা জড়িত ছিল, তাদের। সে সময় জামায়াতে ইসলামী, মুসলিম লীগ, নেজামে ইসলামী, পিডিপি, কৃষক প্রজা পার্টি এবং অন্যান্য দলের হাজার হাজার নেতা ও কর্মী স্বাধীনতার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছিলেন। স্বাধীনতার পর দালাল আইনে তাঁদের বিচার শুরু হয়েছিল। অনেকের জেল-জরিমানা হয়েছিল। অনেকে আবার ক্ষমতাসীনদের নানা রকম এনাম দিয়ে ছাড়াও পেয়েছিলেন। আওয়ামী লীগ স্বাধীনতাবিরোধীদের ক্ষমা করে দিয়েছিল, এ কথা ঠিক। সেই ক্ষমার মধ্যে তাদের রাজনৈতিক উদ্দেশ্যও থাকতে পারে। কিন্তু বিএনপি ক্ষমতায় এসে কেন ক্ষমাপ্রাপ্তদের রাজনৈতিকভাবে পুনর্বাসিত করল? দেশের মন্ত্রী-প্রধানমন্ত্রী বানাল? আওয়ামী লীগ স্বাধীনতাবিরোধীদের ক্ষমা করে যদি সগিরা গুনাহ করে থাকে, বিএনপি করেছে কবিরাহ গুনাহ। এরপর খালেদা জিয়া যে ভয়ংকর কথাটি বলেছেন, তা হলো যুদ্ধাপরাধীদের ‘বিচার রুখে দিতে হবে’। তিনি কীভাবে ভাবলেন, জনগণ তাঁর এই আহ্বানে সাড়া দেবে?২০০৮ সালের নির্বাচনের কথা কি তাঁর মনে আছে? সেই নির্বাচনে তিনি দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও স্লোগান দিয়েছিলেন। ভোটাররা আমলে নেননি। বিএনপির নির্বাচনী ইশতেহারে যুদ্ধাপরাধের বিচারের কথা ছিল না। আওয়ামী লীগের ইশতেহারে ছিল। জনগণ আওয়ামী লীগকেই ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছে। এখন আওয়ামী লীগ যুদ্ধাপরাধীদের বিচার না করলে প্রতিশ্রুতি ভঙ্গের দায়ে তাদের অভিযুক্ত হতে হবে। যেমনটি হয়েছিল ১৯৯৬ সালে।এ কথা ঠিক, গত ২০ মাসে আওয়ামী লীগ সরকার জনগণের কাছে দেওয়া অনেক অঙ্গীকারই রাখতে পারেনি। সর্বত্র দলবাজি, চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি, নিয়োগবাজি চলছে। বিরোধী দল হিসেবে বিএনপির উচিত এর প্রতিবাদ করা। কিন্তু যুদ্ধাপরাধের বিচারের বিষয়টি নিয়ে অহেতুক বিতর্ক করছে কেন? আগে বিদেশি জুজুর ভয় দেখাত। কিন্তু যখন দেখা গেল কোনো দেশই তাদের কথা আমলে নিচ্ছে না তখন হানাহানির ভয় দেখাচ্ছে। এটি দায়িত্বশীল বিরোধী দলের কাজ নয়।বিএনপি চেয়ারপারসন যুদ্ধাপরাধীদের বিচার রুখে দাঁড়ানোর জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। দেশবাসী দূরে থাক, এ কাজে তিনি দলের কর্মীদেরও পাবেন না। বিএনপিতে হাতে গোনা কয়েকজন যুদ্ধাপরাধী থাকলেও সবাই তাদের সমর্থক নয়। দলের নতুন প্রজন্মের নেতা-কর্মীরাও যুদ্ধাপরাধের বিচার চান। আমরা স্মরণ করতে পারি, ১৯৯২ সালে গোলাম আযমের নাগরিকত্বকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা ঘাতক-দালালবিরোধী আন্দোলনের শুরুতে বিএনপির নেতা-কর্মীরাও যোগ দিয়েছিলেন। কিন্তু পরবর্তী সময় শীর্ষ নেতৃত্ব তাঁদের খামোশ করে দিয়েছিলেন। এখনো কি জামায়াতকে রক্ষা করতে খালেদা জিয়া দলীয় কর্মীদের খামোশ করার চেষ্টা চালাচ্ছেন?যে দলটির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান একজন সেক্টর কমান্ডার ছিলেন, যে দলে এখনো বহু মুক্তিযোদ্ধা আছেন, সেই দলটি যুদ্ধাপরাধের বিচারের বিরোধিতা কীভাবে করে? তাহলে জামায়াত ও বিএনপির মধ্যে তো কোনো পার্থক্য থাকে না।খালেদা জিয়া আওয়ামী লীগ সরকারের গৃহীত অন্যান্য পদক্ষেপের কঠোর সমালোচনা করলেও রুখে দিতে বলেননি, কিন্তু যুদ্ধাপরাধের বিচার রুখে দিতে বলেছেন। কেন রুখে দিতে হবে? তাতে জামায়াতের নেতারা, অর্থাৎ তাঁর দলের চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধীরা খুশি হবেন বলে? এ আহ্বানের একটাই উদ্দেশ্য, তা হলো যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচাতে হবে। যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচানোর মিশনে নেমেছেন তিন-তিনবার প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বপালনকারী খালেদা জিয়া। কেন তাদের বাঁচাতে হবে? মনে রাখবেন, জামায়াতের মিত্রতা রক্ষার বিনিময় মূল্য অনেক বেশি। বিএনপি হঠাৎ কেন যুদ্ধাপরাধের বিচারের বিপক্ষে অবস্থান নিল? কার স্বার্থে? তাহলে আওয়ামী লীগের নেতারা যে অভিযোগ করে আসছিলেন সেটাই ঠিক—বিএনপি যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচাতে চাইছে।খালেদা জিয়া আরও বলেছেন, ‘ঐক্যবদ্ধ একটি সুন্দর দেশ ও সমাজ গড়ার জন্য জনগণ মুক্তিযুদ্ধ করেছে। আজ সেই মুক্তিযুদ্ধকে জাতির বিভাজনের হাতিয়ার করার অপচেষ্টা চলছে। ইতিহাসের বিকৃতিকে আমরা মেনে নিতে পারি না।’ ইতিহাসের বিকৃতি কারও কাম্য নয়। ইতিহাস নির্মাণে যাঁদের কোন ভূমিকা নেই, তাঁরাই ইতিহাস বিকৃতি করেন। এর দায় থেকে কেউ মুক্ত নন। ক্ষমতার হাত বদলের সঙ্গে সঙ্গে নাম কর্তন হয়, নাম যুক্ত হওয়ার মহড়া চলে। হাসান হাফিজুর রহমান সম্পাদিত ১৫ খণ্ডের স্বাধীনতা যুদ্ধের দলিলপত্রকে মুক্তিযুদ্ধের প্রামাণ্য দলিল হিসেবে বিবেচনা করা হয়। জিয়াউর রহমানের উদ্যোগেই এ দলিলপত্র প্রকাশিত হয়েছিল। চারদলীয় জোট আমলে তৃতীয় খণ্ড থেকে বঙ্গবন্ধুর ঘোষণাটিই গায়েব করে দেওয়া হয়েছিল কার নির্দেশে? এর উদ্দেশ্য পরিষ্কার। জিয়াকে স্বাধীনতার ঘোষক বানানো। ২৭ মার্চ তিনি বঙ্গবন্ধুর পক্ষে ঘোষণা দিয়েছিলেন। সে জন্য বঙ্গবন্ধুর ঘোষণাটি গায়েব করতে হবে কেন? আবার বর্তমান সরকার যেভাবে সবখান থেকে জিয়ার নাম মুছে ফেলার চেষ্টা চালাচ্ছে তাও শুভবুদ্ধির পরিচয় নয়। ইতিহাসে যাঁর যেটুকু স্থান তা দিতে হবে। একাত্তরে জাতি ঐক্যবদ্ধ ছিল। কতিপয় রাজাকার-আলবদর ও শান্তি কমিটির সদস্য বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে ঠেকাতে পারেনি। খালেদা জিয়া কিংবা তাঁর দল বিএনপিও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ঠেকাতে পারবে না। যদি গায়ের জোরে বিচার ঠেকাতে চায়, তাহলে জনগণই তাদের ঠেকিয়ে দেবে। 
 
FORMER STATE MINISTER OF HOME MR. LUTFUZZAMAN BABAR & TAREQ RAHMAN ALSO ACTIVE AGENT OF JMB HUJI & LeT IN BANGLADESH. At the age of 42 Tareq made his first significant step in politics in 2002, when ruling Bangladesh Nationalist Party was announced that he had been promoted to a senior position. Mr Rahman rapidly acquired a reputation for being a “hatchet man” for enforcing party discipline. Mr. Rahman appears to prefer working behind the scenes. His private office “Hawa Bhavan” was widely viewed by political opponent Awami League as the driver of the country’s mismanagement and corruption during 2001 to 2006 while his mother Khaleda Zia was the Prime Minister. He rarely speaks to the press, and is renowned for his reticence in the few media interviews he has given. the looters of the century and razakars Under the present care taker government on March 7, 2007, Tareq Rahman was arrested by law enforcing Joint Forces. He is charged with extortion and other corruptions. He initially denied the charges. But later the situation turned dramatically when other arrested BNP political leaders started to disclose information on Tareq Rahman’s corruption. Especially the arrest of former state minister for home affairs Lutfozzaman Babar on May 29, 2007 brought a huge downfall of Tareq’s public image. Mr. Babar provided evidence of Tareq Rahman’s corruption. But trail has not started for these charges yet. Khaleda Zia claimed in the court that her sons had not committed any crime as they did not need money. 
======================= 
10 Truck arms was smuggled by babar, saka, nizami and tareq The UN anti corruption agency declared Bangladesh “the most corrupt country in the world” 5 years in a row. In 2006 the prize passed into other hands, leaving Bangladesh in “only” third place. “Corruption is widespread, from the postman to ministers, from teachers to judges” experts note. “People constantly discuss it, politicians make promises, but no one actually believes its levels can even be reduced”. 
------------------------------------------------------------------------------------- 
If Ershad is barred from running in next election due to corruption charges, then what about Khaleda Zia and her family members. She must explain to people how her family became one of the richest families in the world from the day of broken suitcase and ragged T-Shirt. Her son Tareque Zia is well known as Mr.10%. By special blessing of Khaleda Zia , from the street Falu Mia earned more than Tk1,000 Cr. Late Abdul Mannan Bhuiyan (secretary general of bnp became the owner of private TV Channel. Vicious circle of syndicate under direct patronization of Tareque Zia plundered thousands of crores Takas from the pocket of common people by hiking the prices of all commodities. In terms of corruption, Ershad was infant compared to Khaleda Zia's family all MPs and Ministers of immediate past BNP-Jamaat govt.Most of the people in Bangladesh did not support the massive corruption done by BNP-Jamaat alliance, so people won't vote for them again. People will vote for a new govt. to punish Khaleda Zia, Tareque Zia and all other MPs and Ministers of immediate past BNP-Jamaat govt.All their properties will be seized by the newly elected govt. to form a National Trust. So, In Coming Election the Main Agenda is to defeat toxic BNP-Jamaat alliance in order to put Khaleda Zia, Tareque Zia and all other thug MPs and Ministers of erstwhile BNP-Jamaat govt. in jail for record breaking misrule and massive corruption. Ziaur Rahman rehabilitate the war criminals and murderers of father of bengali nation
 
ZIAUR RAHMAN REHABILITATE THE RAZAKARS AND 
 
BANGABANDHU MURDERERS.
.---------------------------------------------------------------- 
Ziaur Rahman, a Major in the Pakistan Army, Zia's unit (2/5 East Bengal Regiment) took control of the Kalurghat radio station in Chittagong at the onset of the Bangladesh Liberation War and on behalf of Bengali nationalist leader (Father of the Nation)Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman.made the most widely transmitted declaration of independence of Bangladesh which was the third and last in a series of such declarations. Recognized as a war hero, he was honored with the second highest national award Bir Uttom in 1972. A high-ranking accomplished officer in the Bangladesh Army, Zia was appointed chief of army staff in course of dramatic events that evolved following the assassination of Sheikh Mujibur Rahman in 1975 by a group of junior military officers and these army personnel met Ziaur Rahman at his residence to killed Sheikh Mujibur Rahman. This was followed shortly by another coup and counter-coup and ultimately led to the consolidation of power under Zia as Deputy Chief Martial Law Administrator. The counter-coup, sometimes referred to as a sepoy mutiny was organized by the socialist Colonel Abu Taher

Thursday, July 28, 2011

All death penalties by martial court after 15 August 1975 can be termed as killings: AL Leaders




Senior Awami League leader Suranjit Sengupta on Saturday said if a martial court is termed a “Kangaroo court”, then all death penalties awarded after the August 15 carnage in 1975 will be considered as killings.“Cases can be lodged for such killings in this regard,” he opined. Suranjit, chairman of the parliamentary standing committee on law, justice and parliamentary affairs ministry, made the observations in reply to the recent remarks of BNP Standing Committee Member Moudud Ahmed. Terming the martial court a “kangaroo court”, former law minister Moudud on Friday said the clemency granted to Jhintu by former president Iajuddin Ahmed was a case in the marital court. Suranjit was addressing a discussion meeting organised by Bangabandhu and Jatiya Char Neta Parishad at Dhaka Reporters’ Unity (DRU) in the city marking the 86th birth anniversary of the first prime minister of Bangladesh Tajuddin Ahmed. “Moudud Ahmed admitted that the marital court was the kangaroo court. If the capital punishment awarded to Jhintu by the kangaroo court is illegal, then all the executions by the martial court after 1975 will be illegal. All these will be considered as killings and cases can be filed in this connection,” Suranjit said. “If the words of Moudud Ahmed are right, the martial law should be termed ‘the jungle law’ and those who ruled the country after 1975 like the regimes of Zia, Sayem and Satter as well as all the martial rulers were illegal and their tenures were also illegal. The Fifth Amendment was illegal.
The minister-ship of Moudud also was illegal,” he added. The AL leader criticised Moudud for his comments that clemency awarded to Jhintu and AHM Biplob was different. “Biplob surrendered to the court showing his respect to the law. But Jhintu remained absconding for 22 years,” Suranjit added. State minister for law Qamrul Islam has alleged that senior BNP leader Moudud Ahmed was the man who had implicated A H M Biplob in the murder case. On Saturday Qamrul said, "After Nurul Islam killing in 2000, former president of the Laxmipur Lawyers' Association, Tarek Uddin Mahmud Chowdhury, filed the first case as a plaintiff mentioning none as accused. But following a petition by Moudud Ahmed subsequently, 10 more people including Taher, his wife and three sons, were made accused." "Later, another 24 persons were made accused. Moudud had exercised his influenced in the case as the then law minister." As a result, this verdict came, he said, adding that "all judgements are not real judgements"